শরীয়তপুরে পাসপোর্ট করানোর সময় রোহিঙ্গা নারী আটক

শরীয়তপুরে পাসপোর্ট করানোর সময় এক রোহিঙ্গা নারীকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার (৬ নভেম্বর) দুপুরে জেলার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস থেকে তাকে আটক করা হয়।

পুলিশ জানায়, জেলার জাজিরা উপজেলার পালেরচর গ্রামের বাবুল ফকির ও তার স্ত্রী পরিচয়ে শাহিদা আক্তার নামে একনারী পাসপোর্ট করাতে আসে। ফরম জমা দেওয়ার পর কাউন্টারের হিসাবরক্ষক তাদের জবানবন্দি গ্রহণ করেন। এ সময় ভাষাগত সমস্যা ধরা পড়ায় শাহিদাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পরে সে নিজেকে রোহিঙ্গা বলে স্বীকার করেন।

রোহিঙ্গা নারীকে আটক করে পালং মডেল থানায় পাঠানো হয়েছে। তবে ওই নারীর সঙ্গে আসা বাবুল ফকির পলাতক রয়েছেন। তাকে ধরতে অভিযান চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শাহিদার কাছ থেকে জানা যায়, তিনি শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পালের চর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জন্মসনদ ও পরিচয়পত্র নিয়েছেন। 
পালের চর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মতিউর রহমান নিবন্ধক হিসেবে শাহিদার জন্মসনদ ও পরিচয়পত্রের নিচে নিবন্ধকের নাম সিল মোহরসহ স্বাক্ষর করেছেন। পাসপোর্ট ফরম ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সত্যায়ন করেছেন পূর্ব নাওডোবা আইডিয়াল কিন্ডারগার্টেন অ্যান্ড হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ফাহাদ হোসেন সৌম্য।

আটককৃত রোহিঙ্গা নারী জানায়, বাবুল ফকিরের সঙ্গে তার চট্টগ্রামে দেখা হয়। তিনি ওই নারীকে মালয়েশিয়া পাঠানোর কথা বলে শরীয়তপুর নিয়ে আসে। সকল কাগজপত্র বাবুল ফকির প্রস্তুত করে এবং তার স্ত্রী পরিচয়ে তাকে পাসপোর্ট করার জন্য পাসপোর্ট অফিসে নিয়ে আসে।

এ বিষয়ে শরীয়তপুর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক শেখ মাহাবুর রহমান বলেন, এক নারী পাসপোর্ট করার জন্য অফিসে এসে ফরম জমা করে। তার আচরণ ও গতিবিধি সন্দেহজনক ছিল। সে শিখানো কয়েকটি বাংলা ভাষা ছাড়া আর কিছুই বলতে পারেনি। পরে তাকে আটক করা হয়।

মাইগ্রেশনিউজবিডি.কম/সাদেক ##

share this news to friends