‘৮৫ শতাংশ বৈদেশিক বিনিয়োগের সঙ্গে সম্পৃক্ত ফিকি’
ছবি : ফিকি’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সহ অন্যরা।- সংগৃহিত

বাংলাদেশে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ গড়ে তুলতে বিদেশি কোম্পানিগুলোকে আকৃষ্ট করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে ‘ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (ফিকি)’। নানা ধরনের কার্যক্রমের মাধ্যমে বাংলাদেশকে নিম্নআয়ের দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে রূপান্তরিত করার পথযাত্রায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে ‘ফিকি’।

বাংলাদেশে ফিকির ৫৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। গত শনিবার (২৭ এপ্রিল) রাতে রাজধানীর একটি হোটেলে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের অবদান অনস্বীকার্য। বর্তমান বাংলাদেশে বড় বড় প্রকল্পের কাজ চলছে। এসব কাজ শেষ হলে বাংলাদেশ আরো ব্যবসাবান্ধব দেশে পরিণত হবে। বাংলাদেশের শ্রমিকেরা সারা বিশ্বের উন্নয়নে ও দেশের সমৃদ্ধির জন্য কাজ করছেন।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে যাতে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা আরো আরামদায়ক ও ভালো ব্যবসার পরিবেশ পায় সে জন্য সরকার নানা ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বিনিয়োগকারীরা ভালো ব্যবসা করতে পারলে দেশও উন্নত হবে। 

ফিকির সভাপতি শেহজাদ মুনিম বলেন, প্রতিষ্ঠাকাল থেকে ফিকি বাংলাদেশে বৈদেশিক বিনিয়োগকে আরো সম্প্রসারিত করার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে পূর্ণ সহযোগিতা করে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় ফিকির সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কার্যক্রমের মাধ্যমে বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নে ধারাবাহিক ভাবে অবদান রেখে চলছে। 

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ১৯৬৩ সালের ১ জুলাই বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করে ‘ফিকি’। পরবর্তী সময়ে তৎকালীন বাণিজ্যিক কেন্দ্রস্থল চট্টগ্রামের আগ্রাবাদের নাম অনুসারে ‘আগ্রাবাদ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’ নামে পরিচিত পায়। এরপর ১৯৮৭ সালে, চেম্বারটি ঢাকায় স্থানান্তরিত হয় এবং ‘ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ফিকি)’ নামে রূপান্তরিত হয়। বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বাণিজ্যিক সম্ভাবনা এবং প্রয়োজনীয় সকল তথ্যাবলি উপস্থাপনের জন্য বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে বিশ্বস্ত সূত্র হিসেবে পরিচিত ফিকি।

ফিকির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, বর্তমানে ফিকি ২ শতাধিক সদস্য নিয়ে প্রায় ৮৫ শতাংশ বৈদেশিক বিনিয়োগের সঙ্গে পরোক্ষভাবে সম্পৃক্ত রয়েছে। এর মাধ্যমে ফিকি বর্তমানে প্রায় ৩০ লাখ মানুষের জীবন জীবিকায় প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে ভূমিকা রাখছে। একই সঙ্গে বাংলাদেশে বর্তমানে ৩০ শতাংশ অভ্যন্তরীণ রাজস্বে অবদান রাখছে এবং শীর্ষ রাজস্ব প্রদানকারী ৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪টি প্রতিষ্ঠানই ফিকি’র সদস্য। এফএমসিজি থেকে শুরু করে টেলিযোগাযোগ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, পরিষেবা এবং অন্যান্য খাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে ফিকি ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশে লাখ লাখ মানুষের জীবনযাত্রাকে প্রভাবিত করছে।

বাংলাদেশে জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে অপরিসীম অবদান রাখায় ফিকি তিনটি প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা দিয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলো হলো - বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথোরিটি (বিডা), জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এবং বাংলাদেশ পুলিশ।

মাইগ্রেশননিউজবিডি.কম/সাদেক ##

share this news to friends